রাজধানীতে যুবক খুন, পোশাককর্মীর মৃত্যু

রাজধানীর আদাবরে এক তৈরি পোশাককর্মীর অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। মোহাম্মদপুরে এক যুবকের ছুরিকাঘাতে মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বুধবার এসব ঘটনা ঘটে।

নিহত পোশাককর্মীর নাম সীমা আক্তার (২০) ও নিহত যুবকের নাম তসির (২৫)।

আদাবর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) খোরশেদ আলম জানান, শেখেরটেকের ৮ নম্বর রোডের ১০৫ নম্বর বাড়ির একটি টিনশেড বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতেন পটুয়াখালীর দিনমজুর সিদ্দিক মোল্লা। তাঁর মেয়ে সীমা আক্তার একটি তৈরি পোশাক কারখানায় কাজ করতেন। গতকাল দুপুরে সীমা আক্তার কাজ থেকে ফিরে ঘরে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দেন। বিকেলে সিদ্দিক মোল্লা বাসায় এসে দরজা বন্ধ দেখে ডাকাডাকি করেন। কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে তিনি দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে ঘরের আড়ার সঙ্গে সীমাকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান। এ সময় তাঁর গলায় ওড়না প্যাঁচানো ছিল। পরে থানায় খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।

সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরির পর লাশ ময়নাতদন্তের জন্য গতকাল রাত ১২টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

খোরশেদ আলম আরও জানান, দুই বছর আগে সীমা আক্তারের বিয়ে হয়েছিল। প্রায় চার মাস সংসার করার পর স্বামীর সঙ্গে তাঁর ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। এরপর থেকে বাবার সঙ্গেই ছিলেন তিনি। তবে কী কারণে তিনি আত্মহত্যা করেছেন, তা নিশ্চিত নয় পরিবার।

মোহাম্মদপুর চাঁদ উদ্যান এলাকায় সিনিয়র-জুনিয়র বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে তসির নামের এক যুবক নিহত হন।

গতকাল দিবাগত রাত সোয়া তিনটায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক বাচ্চু মিয়া এসব ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।